৭২ ঘন্টার সময় দিলেন পাবনার বাস মালিকরা, নইলে গোটা উত্তরবঙ্গে যানবাহন বন্ধ

পাবনা থেকে ঢাকাগামী কোচ ধর্মঘট চার দিন ধরে অব্যাহত রয়েছে। ফলে যাত্রীদের চরম দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে। জেলা বাস মালিক ও শ্রমিকরা দফায় দফায় বৈঠক করেও কোচ চলাচলে কোন সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারেনি।

এদিকে রোববার দুপুরে ধর্মঘটের চতুর্থ দিন উদ্ভুত পরিস্থিতিতে পাবনা প্রেসক্লাবে জেলা পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলন করে ছয় দফা দাবী পেশ করেছে। ৭২ ঘন্টার মধ্যে দাবী আদায় না হলে পাবনাসহ গোটা উত্তরবঙ্গে সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধের হুমকি দেয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পাবনা জেলা পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহবায়ক ও মটর মালিক গ্রুপের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান জানান, সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরের বাস মালিক শ্রমিকরা দীর্ঘদিন ধরে পাবনার কোচ ও বাস ড্রাইভারদের মাঝে মধ্যেই বিনা কারণে মারধর করে থাকে। পাবনার মালিক শ্রমিকরা সংশ্লিষ্ট কতর্ৃপক্ষের কাছে এর প্রতিকার চেয়ে কোন ফল পায়নি। জাতীয় মহাসড়কের উপর দিয়ে যানবাহন চলাচল, শাহজাদপুরের বাস মালিক শ্রমিকদের চঁাদাবাজি ও পাবনার সকল শ্রমিকদের উপর অত্যাচার বন্ধ, এবং সকল সমস্যার স্থায়ী সমাধানসহ ৬ দফা দাবী তুলে ধরে তিনি বলেন, ৭২ ঘন্টার মধ্যে দাবী আদায় না হলে পাবনাসহ গোটা উত্তরবঙ্গে সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হবে।

পাবনা জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ফিরোজ খান জানান, আমরা কয়েকবার বৈঠকে বসেছি। কিন্তু শাহজাদপুরের শ্রমিকরা কিছুতেই কথা শুনছে না। এর সমাধান না হওয়া পর্যন্ত পাবনা থেকে ঢাকাগামী সকল প্রকার বাস চলাচল বন্ধ থাকবে।

উল্লেখ্য, পাবনার শ্রমিকদের মারধর এবং সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরের উপর দিয়ে যানবাহন চলাচলে বাধা দেওয়ার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার রাত থেকে পাবনা থেকে ঢাকাগামী সকল প্রকার বাস চলাচল অর্নিদিষ্টকালেরর জন্য বন্ধ রয়েছে। এদিকে আকস্মিকভাবে ঢাকার বাস বন্ধ করে দেওয়ায় চরম র্দুভোগে পড়েন যাত্রীরা।

পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ জানান, সিরাজগঞ্জ এবং পাবনার মালিক ও শ্রমিকরা নিজেরাই আলোচনা করছেন। তারা ব্যর্থ হলে প্রশাসন পরিবহন ধর্মঘট নিরসনে কাজ শুরু করবে।