৩১ মার্চ থেকে ইছামতি নদীর দুপাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ঘোষণা

অবশেষে আগামী ৩১ মার্চ ইছামতি নদীর লাইব্রেরি বাজার ব্রিজ থেকে মেরিল বাইপাস পর্যন্ত দুই পাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং মন্ডলপাড়া ব্রিজ থেকে মেরিল বাইপাস পর্যন্ত খনন কাজ শুরু করা হবে ঘোষণা দিয়েছেন পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ।

বুধবার (১০ মার্চ) জেলা প্রশাকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা পানি সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, পাবনাবাসীর প্রাণের দাবী পাবনার ঐতিহ্যবাহী ইছামতি নদী খনন কাজে কোন রকম অনিয়ম করতে দেওয়া হবে না। মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী সিএস ম্যাপ অনুযায়ী নদীর সীমানা চিহিৃত করা হবে। সীমানা পিলার বসায়ে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, যারা নদীর জায়গায় আছেন তারা নিজেরা সরে যাবেন। আমাদের উচ্ছেদ করতে হলে উচ্ছেদের খরচ সংশ্লিষ্ট দখলদারদের বহন করতে হবে। প্রয়োজনে এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আফরোজা খাতুনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন পাউবো নিবার্হী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম চৌধুরী এবং ইছামতি নদী উদ্ধার আন্দোলন পাবনার সভাপতি এস এম মাহবুব আলম। সভায় বরেন্দ্র নিবার্হী প্রকৌশলী সাইফুন নাহার, পাউবোর উপবিভাগীয় প্রকৌশলী শাহিন রেজা এবং তালহাউদ্দিন শরীফ ও সহকারী পরিচালক মোশারফ হোসেন সহ কমিটির অন্যান্য সদস্যগন উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্যঃ মহামান্য হাইকোর্টের নিদের্শনা অনুযায়ী সিএস ম্যাপ অনুযায়ী নদীর দু‘পারে উচ্ছেদ এবং খনন কাজ যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করার দাবীতে ঐদিন ৩১ মার্চ আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম কমপ্লেক্স ভবনের সামনে এক মানববন্ধন এর আয়োজন করা হয়েছে। মানববন্ধনে সর্বস্তুরের জনগনকে অংশ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করেছেন ইছামতি নদী উদ্ধার আন্দোলন পাবনার সভাপতি এস এম মাহবুব আলম এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান হাবিব।

একটি সুত্র জানায় কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স ,সংসদ সদস্য নাদিরা ইয়াসমিন জলি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন এবং পৌর মেয়র শরীফ উদ্দিন প্রধান সহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং সূধীজন।