সিলেটে বিরোধ তু্ঙ্গে: দফায় দফায় কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠক

সিলেট জেলা বিএনপির বিরোধ কমাতে কেন্দ্রীয় ৩ নেতা এখন সিলেটে। তারা আহবায়ক কমিটির বিবদমান দুই পক্ষের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করেছেন। একই সঙ্গে সিলেটে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গেও তারা আলোচনা করেন। তবে- বিবদমান দুই অংশের নেতারা কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দিয়েছেন। কেন্দ্রীয় নেতারা উভয় অংশের বক্তব্য শোনেছেন।

এদিকে- সিলেটে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য জেলা বিএনপির আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদারকে আরো সতর্ক হওয়ার আহবান জানিয়েছেন নেতারা। এজন্য জেলা আহবায়ককে সার্বজনীন হওয়ার আহবান জানান তারা। সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির অধিভুক্ত ১৮ ইউনিটের আহবায়ক কমিটি ঘোষনার পরপরই বিরোধ দেখা দেয়।

এই বিরোধে জেলা আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার সহ একাংশের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ হন কাইয়ূম চৌধুরী-আব্দুল মান্নান-এমরান চৌধুরী সহ ৯ সদস্য। এরপর থেকে সিলেট জেলা বিএনপিতে বিরোধ দেখা দেয়। এই বিরোধের নিস্পত্তি ঘটাতে কেন্দ্র থেকে তিন নেতা গতকাল রোববার সিলেটে এসেছেন। এরা হলেন- টিমের দলনেতা ও বিএনপির সহ সভাপতি ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাখাওয়াত হাসান জীবন ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন।

রবিবার সকালে তারা প্রথমে প্রবীন নেতা এম এ হকের যতরপুরস্থ বাসভবনে সিলেটে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এম.এ হক ও ডা. এনামুল হক চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সহ-ক্ষুদ্র ঋণ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সামসুজ্জামান জামান, কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সদস্য আবুল কাহের শামীম, সিলেট মহানগরের সভাপতি নাসিম হোসেইন ও জেলা বিএনপির আহ্‌বায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে উপস্থিত থাকা নেতারা জানিয়েছেন- ওই বৈঠকে সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির কর্মকান্ডের অসন্তোষ ও বিষ্ময় প্রকাশ করেন সিনিয়র নেতারা। বিভিন্ন অভিযোগ ভিত্তিতে আলোচনার পর তারা সিলেট বিভাগীয় টিমের ৩ কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে চলমান সমস্যা সমাধানের জন্য জোর আহ্‌বান জানান। সার্বিক সহযোগিতা প্রদানেরও আশ্বাস দেন।

 ওই বৈঠকে পর দুপুরে আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদারের উপর ক্ষুব্ধ থাকা ৯ সদস্যের সঙ্গে বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় নেতারা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সিলেট জেলা বিএনপির আহ্‌বায়ক কমিটির সদস্য কাইয়ূম চৌধুরী, এডভোকেট আশিক উদ্দিন, আব্দুল মান্নান, এমরান আহমদ চৌধুরী, আহমেদুর রহমান চৌধুরী মিলু, ইশতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, মাহবুবুল হক চৌধুরী। বৈঠকে জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ তাদের সকল অভিযোগ তুলে ধরেন।

বৈঠক সূত্র জানায়- জেলা আহবায়ক কমিটির নেতারা পুরো ঘটনার জন্য আহবায়ককে দায়ী করেছেন। এবং আহবায়ক নিরপেক্ষ ভুমিকা না রাখার কারনেই ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করেন। এজন্য তারা সিলেট জেলা বিএনপিকে সচল রাখতে জেলা আহবায়েেকর পদত্যাগ দাবি করেন। বলেন- আহবায়ক দায়িত্বে থাকলে জেলা বিএনপি অকার্যকর হয়ে যাবে। এ সময় বিএনপি নেতৃবৃন্দের দাবির প্রেক্ষিতে স্বল্প সময়ের মধ্যে চলমান সমস্যা সমাধানের আশ্বাস প্রদান করেন কেন্দ্রীয় বিভাগীয় টিমের নেতারা। তারা এজন্য ধৈর্য ধারণ করতে ক্ষুব্ধ নেতাদের প্রতি আহবান জানান। জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য এমরান আহমদ চৌধুরী কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন- আমরা আমাদের যৌক্তিক অভিযোগগুলো উপস্থাপন করেছি। এদিকে- বিকেলে সিলেট নগরীর সোলেমান হলে আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার সহ অন্যদের সঙ্গে আলোচনায় বসেছেন ডা. জাহিদ সহ কেন্দ্রীয় ৩ নেতা। সন্ধ্যা পর্যন্ত বৈঠক চলছিলো।

বৈঠকে উপস্থিত থাকা আহবায়ক কমিটির একাধিক নেতা মানবজমিনকে জানিয়েছেন- তাদের অভিযোগ খন্ডন করে আহবায়ক অংশের নেতারা বক্তব্য রেখেছেন। ১৮ ইউনিট বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠনে কোনো ভুল হয়নি বলে জানান তারা। যুক্তি হিসেবে তারা জানান- যে কমিটিগুলো গঠন হয়েছে সেগুলো অস্থায়ী। আগামী কিছু দিনের মধ্যে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হবে। সুতরাং বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা করা হচ্ছে বলে জানান তারা।