সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে পাবনায় সাংবাদিকদের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আক্রোশমূলক ভাবে হেনস্থা, শারীরিক ভাবে নির্যাতন ও হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলার প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারসহ দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবীতে পাবনায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

পাবনা প্রেসক্লাব, রিপোটার্স ইউনিটি, প্রথম আলো বন্ধু সভাসহ নানা সংগঠন লাগাতার কর্মসূচীর দ্বিতীয় দিন বুধবার (১৯ মে) দুপুর ১২ টার দিকে শহরের আব্দুল হামিদ রোডে প্রেসক্লাবের সামনে এই আয়োজন করে।

পাবনা প্রেসক্লাবের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক প্রভাষক ইয়াদ আলী মৃধা পাভেলের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, সাবেক সভাপতি বীর মু্ক্তিযোদ্ধা রবিউল ইসলাম রবি, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি আব্দুল মতীন খান, পাবনা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি মির্জা আজাদ,  সহ-সভাপতি শহীদুর রহমান শহীদ, সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ, সাংবাদিক আব্দুল হামিদ খান, পাবনা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারন সম্পাদক কাজী মাহবুব মোর্শেদ বাবলা, পাবনা টেলিভিশন সাংবাদিক সমিতির সভাপতি রাজিউর রহমান রুমী, প্রথম আলোর প্রতিনিধি সরোয়ার উল্লাস প্রমুখ।

এ সময় পাবনা বার্তা ২৪ ডটকমের শামসুল আলম, ঢাকা পোস্টের রাকিবুল হাসান, প্রতিদিনের সংবাদের খালেকুজ্জামান পান্নুসহ পাবনায় কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিনিধিসহ সুুুশীল সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুুুষ অংশ নেন।

মানববন্ধনে বক্তারা দাবী করেন, খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে মুক্তিসহ তার উপরে হয়রানীমূলক মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহারসহ এই ঘটনার মূল নায়ক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেসাকে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে শাস্তি প্রদানের জন্য রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রকদের কাছে জোড়ালা আহবান জানান। একই সাথে আইসিটি কালো আইন বাতিল করার দাবী জানানো হয়। সরকার এই আইন করার সময়ে গণমাধ্যমের উপর এর প্রভাব পড়বেনা এমন আশ্বাস দিলেও কার্যত তা অন্ধকারের নিমজ্জিত রয়েছে। যা গণমাধ্যমের স্বাধীন মতপ্রকাশের সবচেয়ে বড় বাঁধা।

গনমাধ্যম কর্মিরা বলেন, আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে মুক্তি না দেয়া হলে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি দেয়া হবে। বৃহস্পতিবার একই দাবীতে পাবনা প্রেসক্লাবের সামনে প্রতীকী অনশন করবেন গণমাধ্যম কর্মিরা।