রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বাবা-মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় এমপি ডিলু

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক ভূমিমন্ত্রী, পাবনা-৪ আসনের (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ভাষাসৈনিক শামসুর রহমান শরীফ ডিলু এমপি।

বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) সকালে ১১টায় তার মরদেহ বহনকারী গাড়ি ঢাকা সংসদ ভবন এলাকা থেকে রওনা দিয়ে ঈশ্বরদী পৌর এলাকার নিজ বাড়িতে পৌছায় বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে। বিকেল সোয়া ৪টার সময় তার নিজ বাসভবনের সামনের মাঠে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভাষা সৈনিক বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন পাবনা সদর-৫ আসনের সংসদস সদস্য পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স, জেলা প্রশাসক কবির মাহামুদ, পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিবহান রায়হানসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের দলীয় নেত্রীবৃন্দ ও প্রশাসনের সর্বস্থরের কর্মকর্তাবৃন্দ।

রাষ্ট্রীয় গার্ড অব অনার শেষে ওই মাঠেই প্রথম জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিকেল সাড়ে ৪টায় মরদেহ নেয়া হয় তার গ্রামের বাড়ি ঈশ্বরদী উপজেলার লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নে। সেখানে বাদ আসর দ্বিতীয় জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় সমাহিত হোন বর্ষিয়ান নেতা শাসুর রহমান শরফি ডিলু।

বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) ভোররাতে বার্ধক্যজনিত কারণে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। শামসুর রহমান শরীফ বেশকিছুদিন ধরে ঢাকা ইউনাইটেড হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন। তিনি ক্যান্সার, কিডনীসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন বলে জানা গেছে। ১৯৪০ সালের ১০ মার্চ এই নেতা জন্ম গ্রহণ করেন।

বর্ষিয়ান এই রাজনীতিবিদ স্ত্রী, ৪ ছেলে ও ৫ মেয়েসহ অসখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। শামসুর রহমান শরীফ ডিলু পাবনা জেলা আ.লীগের সভাপতি ও পরপর পাঁচবারেরর নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। পাবনা জেলা আ.লীগসহ এই বর্ষিয়ান রাজনৈতিক নেতার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে জেলাব্যাপী।