পাবনা পৌরসভায় মেয়র পদে জামায়াত নেতার মনোনয়ন বাতিল

পাবনা পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে জমা দেওয়া পৌর জামায়াতের সেক্রেটারি মুহাম্মদ রকিব উদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তা।

মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইয়ের শেষ দিন রবিবার (৩ জানুয়ারি) ৭ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে শুধু জামাত নেতার মনোনয়ন বাতিল করা হয়। এছাড়াও দুইজন সংরক্ষিত মহিলা ও ছয় জন সাধারণ পুরুষ কাউন্সিলরের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে পাবনা পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী নিয়ে বেশ সরগরম হয়ে উঠেছে রাজনীতির মাঠ। সরকার দলীয় নৌকা প্রতীক নিয়ে এই পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাবনা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক পাবনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সহ-সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী আলী মুর্তজা বিশ্বাস সনি।

অপর দিকে দলীয় মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হয়ে (সতন্ত্র) মেয়র প্রার্থী হিসেবে দুইজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। এরা হলে সাবেক জেলা যুবলীগের সভাপতি মো. শরীফ উদ্দিন প্রধানসহ গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. রকিব হাসান টিপু।

বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে এই পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাবেক জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক এডওয়ার্ড কলেজের ভিপি নূর মোহম্মদ মাসুম বগা, জাতীয় পার্টি থেকে চৌধুরী মোহম্মদ মাহাবুবুল হক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হয়ে নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আবু বক্কর সিদ্দীক।

পাবনা পৌরসভা ১৫টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার রয়েছে ১ লাখ ১২ হাজার ২৪৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৮ হাজার ৪০ জন আর নারী ভোটার ৫৪ ২০৪ জন। সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ৭৪ জন আর সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন জেলা নির্বাচন অফিসের তথ্য মতে জানা গেছে।

তৃতীয় ধাপের পৌর নির্বাচনের মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া আর নির্বাচনের কার্যক্রম নিয়ে কথা হয় জেলা নির্বাচন অফিসার মো. মাহাবুববুর রহমানের সঙ্গে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে দাখিলকৃত মনোনয়নপ্রত্র যাচাই বাছাই শেষে একজন মেয়র ও দুইজন সংরক্ষিত নারী ও ছয় জন সাধারণ কাউন্সিলর পদের প্রার্থীর মনোনয়পত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে আগামী তিন দিনের মধ্যে তারা আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রার্থীতা বহাল রাখার জন্য নির্বাচন কমিশন বরাবর আপীল করতে পারবে। তবে আগামী ১০ জানুয়ারি প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। ১১ জানুয়ারিতে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। আগামী পৌরসভার নির্বাচনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা প্রস্তুত আছি।