মানসিক হাসপাতালের সাবেক পরিচালকসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ৬টি মামলা

নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে বিভিন্ন পণ্য সরবরাহ করে ৮৮ লাখ ৩ হাজার ৭৬২ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে পাবনা মানসিক হাসপাতালের সাবেক পরিচালক প্রফেসর ডা. তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাসসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ৬টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

বুধবার (১৫ জুন) বিকেলে দুদকের সমন্বিত পাবনা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. শহীদুল আলম সরকার বাদী হয়ে মামলাগুলো করেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- জেলার সাবেক বিপণন কর্মকর্তা (বর্তমানে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের দিনাজপুর কার্যালয়ে কর্মরত) হুমায়ুন কবীর, হাসপাতালের খাদ্যসরবরাহ ঠিকাদার এইচ এম রেজাউল, এইচ এম ফয়সাল ও এইচ এম আরফিন। এ তিন ঠিকাদার সহোদর, তাঁদের বাড়ি পাবনা শহরে।

দুদকের পাবনা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ঠিকাদারেরা ২০১৭-১৮, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে যোগসাজশ করে নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে বিভিন্ন পণ্য সরবরাহ করে ৮৮ লাখ ৩ হাজার ৭৬২ টাকা আত্মসাৎ করেন। বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে নামে দুদক। প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া যায়। পরে মামলার সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

দুদকের পাবনা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শহীদুল আলম সরকার বলেন, দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাওয়ায় মামলাগুলো করা হয়েছে। মামলার তদন্ত দুদক করবে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো হবে। তিনি আরও বলেন, দেশের একমাত্র বিশেষায়িত হাসপাতালে ঠিকাদারি করে সেবা দেওয়ার নামে নিম্নমানের পণ্য ও খাবার সরবরাহ করে নিজেরা ফায়দা লুটেছেন। নিরিহ রোগীদের সাথে প্রতারণা করা হয়েছে।

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে প্রফেসর ডা. তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাস পাবনা বার্তা ২৪ ডটকমকে বলেন, ‘আমি বিষয়টি জানতাম না। আপনার কাছ থেকেই মামলার বিষয়টি প্রথম শুনছি। আমি কোনো অনিয়ম করিনি। সব কিছুই নিয়মতান্ত্রিকভাবেই হয়েছে।’