মহানগর বিএনপির কমিটি হবে কেন্দ্রভিত্তিক, ভেঙে যাচ্ছে মহিলা দলের কমিটিও

বিএনপির ঢাকা মহানগর কমিটি পুনর্গঠনে নতুন প্রক্রিয়া অনুসরণের চিন্তাভাবনা করছে দলটি। বর্তমান কমিটি বহাল রেখে সংগঠনটি শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণে ভোট কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি করার চিন্তাভাবনা চলছে। এছাড়া শিগগিরই ভেঙে দেয়া হবে মেয়াদোত্তীর্ণ মহিলা দলের কমিটিও।

এ অঙ্গসংগঠনটি পুনর্গঠনের জন্য স্থায়ী কমিটির তিন সদস্যকে দায়িত্বও দেয়া হয়েছে। শনিবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব বিষয়ে আলোচনা হয়।

সূত্র জানায়, বৈঠকে মহানগর কমিটি পুনর্গঠনের বিষয়ে আলোচনা হয়। এ বিষয়ে নেতারা নিজস্ব মতামত তুলে ধরেন। কেউ কেউ বর্তমান কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি করার পক্ষে মত দেন। কিন্তু বেশিরভাগ নেতা বলেন, বর্তমান কমিটি ভেঙে দিলেই সমস্যার সমাধান হবে না।

বর্তমান কমিটি বহাল রেখে কিভাবে মহানগরকে শক্তিশালী করা যায় সে ব্যাপারে সবাইকে ভাবতে হবে। এ প্রসঙ্গে কয়েক নেতা তাদের নিজস্ব মতামত দেন। তারা বলেন, মহানগরে বর্তমানে থানা ও ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটি রয়েছে। ভোট কেন্দ্রভিত্তিক কোনো কমিটি নেই।

ফলে বিগত নির্বাচনে নেতাকর্মীদের কেন্দ্রে দেখা যায়নি। কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি থাকলে সংগঠন শক্তিশালী হওয়ার পাশাপাশি ভোটেও শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলা সম্ভব। বর্তমানে কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি না থাকায় ভোটের দিন কেন্দ্রে অনুপস্থিত থাকা নিয়ে কেউ দায়িত্ব নিতে চান না। কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি করা হলে ওই কমিটিকেই সব দায়িত্ব নিতে হবে।

স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, বিগত সিটি নির্বাচনে দুই মহানগরের প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে একটি করে কমিটি করা হয়েছিল। সেই কমিটির আলোকেই মহানগর বিএনপির কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি করা সম্ভব। এ প্রস্তাবে বৈঠকে উপস্থিত প্রায় সবাই ইতিবাচক মত দেন।

এক্ষেত্রে প্রয়োজনে গঠনতন্ত্র পরিবর্তনও করা হতে পারে। সূত্র জানায়, বিষয়টি নিয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। তিনি ইতিবাচক মনোভাব দেখালেই আনুষ্ঠানিকভাবে কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হবে।

সূত্র আরও জানায়, বৈঠকে মেয়াদোত্তীর্ণ অঙ্গসংগঠনগুলো পুনর্গঠন নিয়েও আলোচনা হয়। বিশেষ করে মহিলা দলের বিষয়টি আলোচনায় স্থান পায়। তবে এ মুহূর্তে কমিটি না ভাঙার সিদ্ধান্ত হয়। মহিলা দল পুনর্গঠনের জন্য স্থায়ী কমিটির তিন সদস্যকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

তারা হলেন- নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা সবার সঙ্গে আলোচনা করে মহিলা দল পুনর্গঠন ও নতুন কমিটি নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করবেন। সেটা দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে পাঠানো হবে। তার মতামত পাওয়ার পরই মহিলা দল পুনর্গঠনে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

সংগৃহিত: যুগান্তর