পাবনায় প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে হাসপাতালে পাঠালো বখাটেরা!

প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় পাবনার সুজানগর উপজেলার সাতবাড়িয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে প্রকাশ্যে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে এক বখাটে।

বুধবার বিকাল ৪টার দিকে মেয়েটি স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে সাতবাড়িয়া কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন বাদী হয়ে বখাটে মো.ফাহাদ মোল্লাকে আসামি করে সুজানগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। অভিযুক্ত বখাটে মো. ফাহাদ মোল্লা (১৭) সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ফকিৎপুর গ্রামের মো. ফারুক মোল্লার ছেলে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ওই স্কুলছাত্রী যুগান্তরকে জানায়, বখাটে মো. ফাহাদ মোল্লা প্রায়ই প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে তাকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। ওই প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় বখাটে ফাহাদ তার প্রতি ক্ষিপ্ত ছিল।

বুধবার ওই ছাত্রী বান্ধবীদের সঙ্গে বিদ্যালয় ছুটির পর বাড়ি যাওয়ার পথে সাতবাড়িয়া কলেজের সামনে বখাটে মো. ফাহাদ মোল্লা তার গতিরোধ করে আবারও প্রেমের প্রস্তাব দেয়।

এতে সাড়া না দেওয়ায় তাকে টেনে-হিঁচড়ে হাতুড়ি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে জখম করে। এ সময় তার চিৎকারে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে আহত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. ফারজানা আক্তার বলেন, আঘাত গুরুতর হওয়ায় স্কুলছাত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে।

সুজানগর থানার ওসি আব্দুল হাননান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে যুগান্তরকে জানান, এ ঘটনায় মামলা হওয়ার পরপরই অভিযুক্ত বখাটে মো.ফাহাদ মোল্লাকে গ্রেফতার করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।