পাবনায় চেয়ারম্যান বাড়ির কর্মচারীকে কুপিয়ে হত্যা, ভাই আশঙ্কাজনক

পূর্ব শক্রতার জেড়ে পাবনার সাঁথিয়ার নাগডেমরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হারুনর রশিদের বাড়ির কর্মচারী আব্দুল মতিন (৩০)কে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় হারুনর রশিদের ভাই জুয়েল রানা গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার (৪ মে) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের আওলাঘাটা ভূনারচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মতিন পশ্চিম সোনাতলা গ্রামের মৃত মহীর উদ্দিনের ছেলে। সে সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদের বাড়িতে শ্রমিকের কাজ করতো। সম্পর্কে চেয়ারম্যানের প্রতিবেশি চাচাতো ভাই বলেও জানা গেছে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, রাতে আব্দুল মতিন পৌরসভার ফেসওয়ান মহল্লার মেয়ে জামাই বাড়ি থেকে দাওয়াত খেয়ে বাড়ি ফেরার পথে ৮ থেকে ১০ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গতিরোধ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়িভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। এসময সঙ্গে সাবেক চেয়ারমান হারুন-অর রশিদের ভাই জুয়েল রানাকে কুপিয়ে হত্যা করতে চাইলে সে ইছামতি নদীতে ঝাঁপ দিয় প্রাণে বাঁচেন। খবর পেয়ে সাবেক চেয়ারম্যানের লোকজন গিয়ে লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। এসময় ইছামতি নদী থেকে আহত জুয়েলকে উদ্ধার করে প্রথমে সাঁথিয়া উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ বিষয়ে নাগডেমরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হারুন-অর রশিদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে অন্যজন রিসিভ করে সাবেক চেয়ারম্যান স্টোক জনিত কারণে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বলে জানান। এজন্য তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

তবে নাগডেমরা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান বলেন, আমি  শনিবার সারাদিন পাবনা শহরে ব্যস্ত ছিলাম। এ বিষয়ে কিছুই জানি না।

সাঁথিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, হত্যার প্রকৃত কারণ এখনো জানা সম্ভব হয়নি। হয়ত পুর্ব শক্রুতার জেড়ে এমন হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। পরে বিস্তারিত জানাতে পারব।

মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। রোববার সকালে ময়নাতদন্ত করতে মর্গে পাঠানো হবে। আহত জুয়েল রানার অবস্থা গুরুতর। এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে এজহার দিলে মামলায় লিপিবদ্ধ করা হবে।