পাবনায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ২০

পাবনার সাঁথিয়ায় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। এসময় বেশকিছু বাড়িঘর ও দোকানে ভাঙচুর চালানো হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকর অভিযোগে ছয়জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) রাতে উপজেলার নাগডেমড়া ইউনিয়নের সোনাতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে আব্দুস সালাম, শহিদুল,মকুল, রাজু, আমিরুল, শান্ত, তানসেল, রবিউলের নাম পাওয়া গেছে। বাকিদের নাম- পরিচয় জানা যায়নি।

আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী হারুন অর রশিদ জানান, রাতে হাড়িয়া গ্রামে নির্বাচনী বৈঠক শেষে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে সোনাতলা বাজারে আসি। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এতে ১৩ জন নেতাকর্মী গুরুতর জখম হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে সাঁথিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। একজনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

অপরদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হাফিজুর রহমান হাফিজ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নৌকার সমর্থকেরা অতর্কিত হামলা করে। এতে সাতজন কর্মী গুরুতর আহত হন। হামলাকারীরা ১০ বাড়িঘর ও তিনটি দোকান ভাঙচুর করেন।

তিনি আরও বলেন, তার সমর্থক সোনাতলা মধ্যপাড়ার আব্দুল বারেক, জলিল শাহ, ইউসুফ, সবুজ মিয়া, মোক্তার শাহ, আওয়াল, জানু, আমানত শাহ, রতন, জাহাঙ্গীরসহ অনেকের বাড়িতে হামলা চালানো হয়। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চান।

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, উভয়পক্ষ থানায় মামলা করেছেন। আটক ছয়জনকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।