পাবনায় কালোজিরার বাম্পার ফলন, কৃষকের মুখে হাসি

কাজী বাবলা: পাবনায় চলতি মৌসুমে মসলা ফসল কালোজিরার বাম্পার ফলন হয়েছে। এবার কালোজিরার দাম ভাল পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। প্রতিমণ কালোজিরা ১১/১২ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

চলতি মৌসুমে এ জেলায় ৩৩৫ হেক্টর জমিতে কালোজিরার আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে স্থানীয় জাতের ২৭৫ হেক্টর এবং হাইব্রিড বারী-১ জাতের ৬০ হেক্টর। হেক্টর প্রতি প্রায় সোয়া টন কালোজিরার ফলন হবে বলে আশা করছে কৃষি বিভাগ।

পাবনা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যে মাঠ থেকে কালোজিরা তুলতে শুরু করেছেন চাষীরা। চলতি মৌসুমে পাবনা জেলায় সব চেয়ে বেশী কালোজিরা আবাদ হয়েছে চাটমোহর উপজেলায়। এ উপজেলায় ৮০ হেক্টর জমিতে কালোজিরার আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে স্থানীয় জাতের ৭৫ হেক্টর এবং হাইব্রিড বারী-১ জাতের ৫ হেক্টর।

চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের মমিনপাড়া গ্রামের চাষী রওশন আলম জানান, প্রদর্শনীর আওতায় তিনি এক বিঘা জমিতে কালোজিরা চাষ করেছেন। এই প্রথম তিনি এ ফসলের চাষ করেছেন। কৃষি প্রণোদনার আওতায় কৃষি বিভাগ থেকে কালোজিরা চাষে তাকে ডিএপি, পটাশ, ইউরিয়া ও জিপসাম সার দেওয়া হয়েছিল। এক বিঘা জমিতে ২ কেজি বীজ লেগেছে। যার বাজার দর ছিল ৮শত টাকা।

এছাড়া জমি চাষ ও পানি সেচ এবং কাটা ও মাড়াই মিলে মোট খরচ হয়েছে ৩ হাজার টাকা। বিঘা প্রতি ৩ থেকে সাড়ে ৩ মণ ফলন পাওয়া যাবে। বর্তমানে বাজারে প্রতিমণ কালোজিরার দাম ১১/১২ হাজার টাকা। এতে তার ২০ হজার টাকা লাভ হবে তিনি জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এএ মাসুমবিল্লাহ জানান, চলতি মৌসুমে কালোজিরার বাম্পার ফলন হয়েছে। এ বছর কালোজিরার দাম ভাল পেয়ে কৃষকরা বেশ খুসি। তিনি আরো জানান, মসলা ফসল হিসেবে কালোজিরার ব্যাপক চাহিদা। নানা রোগ প্রতিরোধে এটি ব্যবহার করা হয়। কালোজিরার তেলের চাহিদাও রয়েছে। কালোজিরা স্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি করে। করোনাকালীন সময়ে কালোজিরা খেলে করোনা প্রতিরোধে ভূমিকা রাখবে।

>> পাবনার নিয়মিত ভিডিও পেতে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল আইকনটি চালু করুন। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন