পাবনায় সরকারি কলেজে সেই গরুর হাট বন্ধ করলেন ইউএনও

শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিবাবকদের দাবির প্রেক্ষিতে পাবনার সাঁথিয়া সরকারি কলেজ মাঠে গরুর হাট বসানো বন্ধ করলেন সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও কলেজের গভর্নিংবডির সভাপতি এসএম জামাল আহমেদ।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী বুধবার কলেজ মাঠে গরুর হাট বসানো বন্ধ করার দাবি জানিয়ে ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ দেয়ার পর তিনি এ পদক্ষেপ নেন।

অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী জানান,গত ২১ জুন সোমবার সাঁথিয়া সরকারি কলেজ প্রাঙ্গনে গরুর হাট লাগানোর জন্য কিছু লোক বাঁশ,খুূঁটা গাড়ছে। গরুর হাট বসালে কলেজের এ্যাসাইনমেন্টের কার্যক্রম ও অনলাইন পাঠদান কাজে চরম প্রতিব›ধকতা সৃষ্টি হবে।

প্রাঙ্গন নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন হবে। আমি আমার সহকর্মীদের সাথে পরামর্শ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে ইউএনও বরাবর লিখিত আভযোগ দিয়েছি।

এ বিষয়ে সাঁথিয়া সরকারি কলেজের গভর্নিংবডির দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান,কলেজের অধ্যক্ষ লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গরুর হাট বসাতে দেয়া হবে না।আমি বিষয়টি অবগত হওয়ার পরপরই হাটের ইজাদারকে ডেকে এনে গরুর হাট বসাতে নিষেধ করে দিয়েছি।

বোয়াইলমারী হাটের ইজারাদার আলমগীর হোসেনকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, কলেজমাঠে পশুর হাট বসানোর উদ্যোগ নিয়েছিলাম।এ লক্ষ্যে বাঁশ,খুঁটা গাড়ার কথাও স্বীকার করেন তিনি। ইউএনও নিষেধ করে দেয়ায় তিনি আর কলেজ মাঠে গরুর হাট বসাবেন না বলে জানান।

উল্লেখ্য, কলেজ মাঠে গরুর হাট বসানোর প্রস্তুতির ছবি ’প্রদীপ্ত সাঁথিয়া’ এবং ’শিক্ষা ও শিক্ষকসমাজ’ নামক ফেসবুকের গ্রুপ পেজে পোস্ট হওয়ার পর সোশাল মিডিয়ায় রীতিমতো সমালোচনার ঝড় ওঠে।সচেতন ব্যক্তিরা এ হীনকাজের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে কলেজ মাঠে গরুর হাট বসানো বন্ধের জোর দাবি জানান।