পাবনার চাটমোহরে নৌকার সাখো বিপুল ভোটে জয়ী

দেশের প্রথম ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে পাবনার চাটমোহর পৌরসভায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো। বিপুল ভোটের ব্যবধানের তিনি বিজয়ী হোন।

সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে চাটমোহর পৌরসভার ৯টি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে। নির্বাচনে সর্বশেষ ফলাফলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. সাখোয়াত হোসেন সাখো (নৌকা প্রতিক) ৬ হাজার ৮১২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ও সাবেক পৌর মেয়র প্রফেসর আব্দুল মান্নান মোবাইল ফোন প্রতিকে ভোট পেয়েছেন ৮৪২।

এছাড়া আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র মির্জা রেজাউল করিম দুলাল জগ প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ১৬১ ও বিএনপির প্রার্থী ও পৌর বিএনপির আহবায়ক আসাদুজ্জামান আরশেদ ধানের শীষ প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৮৫।

এদিকে পাবনার চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনে কেন্দ্র দখল, জোর করে ইভিএম মেশিনে ভোট প্রদান, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া সহ নানা অভিযোগে স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী ভোট শুরু হওয়ার দুই ঘন্টা পরেই বর্জনের ঘোষনা দেন।

সোমবার সকাল ১০টায় সবুজ সংঘ ক্লাবের সামনে স্বতন্ত্র ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী প্রফেসর আব্দুল মান্নান (মোবাইল ফোন প্রতিক) সাংবাদিকদের ডেকে ভোট বর্জনের ঘোষনা দেন। এরপরই ছোট শালিখা মহল্লার নিজ বাস ভবনে সাংবাদিকদের ডেকে নিয়ে ভোট বর্জনের ঘোষনা দেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মির্জা রেজাউল করিম দুলাল।

ভোট বর্জনকারী দুই প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, সকালে ভোটগ্রহণ শুরুর পর নৌকার এজেন্ট ও কর্মীরা অন্যান্য প্রার্থীর এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেয়। এছাড়া সকল ভোট কেন্দ্র দখলে নিয়েছে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর লোকজন। বুথে ইভিএমের গোপন কক্ষে নৌকার এজেন্টরা ফ্রিঙ্গারপ্রিন্ট দেয়ার পর ভোটারদের জোর করে নৌকায় ভোট দিতে বাধ্য করছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনকে জানিয়েও ফল হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে তারা ভোট বর্জন করেছেন।

নির্বাচন বিষয়ে ধানের শীষ তথা বিএনপির প্রার্থী আসাদুজ্জামান আরশেদ বলেন, নির্বাচন কেমন হচ্ছে, আ.লীগ কি করছে তা আপনারা সবাই দেখেছেন। দলের হাই কমান্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমি নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত থাকবো। এ নির্বাচন নিয়ে আমি বেশি কিছু বলতে পারবো না।

এ বিষয়ে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, ভোটবর্জনের খবর তার জানা নেই। তবে নির্বাচনের পরিবেশ ভাল আছে। ভোটাররা ভোট দিচ্ছেন। কোনো অভিযোগ পেলে সাথে সাথে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগ সঠিক নয়।

আরও পড়ুন>> চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে

দেশের প্রথম ধাপের ২৪টি পৌরসভা নির্বাচনে পাবনার চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে। ভোটগ্রহণ চলছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন-ইভিএমে। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে এই ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

মোট ১২ হাজার ২৩৮ জন ভোটারের চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৬ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মেয়র পদে আওয়ামী লীগের উপজেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র মির্জা রেজাউল করিম দুলাল (জগ), বিএনপির প্রার্থী ও পৌর বিএনপির আহবায়ক আসাদুজ্জামান আরশেদ (ধানের শীষ) এবং বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ও সাবেক পৌর মেয়র প্রফেসর আব্দুল মান্নান (মোবাইল ফোন) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন জানান, ৯টি ওয়ার্ডের ৯টি ভোটকেন্দ্রে ৯ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৪০জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ৮০ জন পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করে।