পাবনায় মসজিদের কমিটি ও ইমাম নিয়ে সংঘর্ষ, সাবেক চেয়ারম্যানসহ ১০ জন হাসপাতালে

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় মসজিদের কমিটি দেয়া ও ইমামকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের রহিমপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির আহবায়ক জিয়াউল ইসলাম সন্টু সরদার (৬৫), শরিফুল ইসলাম (৩৪), ইমন সরদার (১৬) রকি সরদার (২৫), রেজাউল করিম রুনু সরদার (৫০), মিঠু সরদার (২৪) সাহাবুল সরদার (৩৮) কে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আবু তাহের সন্টু সরদার জানান, রহিমপুর গ্রামের মসজিদ ও ইমামকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের সায়দার সরদার গংদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। মঙ্গলবার রাতে ছাইদার সরদারের নেতৃত্বে ৪০/৫০ জনের একটি সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী অতর্কিতভাবে আমাদের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলাকারীরা দেশীয় অস্ত্র হাসুয়া, রামদা, চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মহিলাসহ প্রায় ১০ জনকে আহত করে। আহতদের ঈশ্বরদী ও রাজশাহী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপরদিকে, অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা সায়দার সরদার জানান, বাড়িঘরে হামলার ঘটনা ঘটেনি। আমাদের ওপর প্রতিপক্ষরা হামলা চালিয়েছিল। জীবন রক্ষার জন্য তাদের হামলা প্রতিহত করার চেষ্টা করলে দুই পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়।

এ ঘটনায় আবু তাহের সরদার বাদী হয়ে সায়দার সরদার, সিদ্দিক সরদারসহ ২৪ জনের নামে ঈশ্বরদী থানায় একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান আসাদ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সংঘর্ষের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বর্তমানে পরিবেশ শান্ত রয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।