পাবনায় আবারও নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১, প্রার্থীসহ আহত কয়েকজন!

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনে সহিংস হয়ে উঠেছে পাবনা জেলা। ইতোমধ্যে সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ দুইজন নিহত হয়েছেন।







এবার জেলার আটঘরিয়া উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় প্রাণ গেল একজনের। স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী)  প্রার্থীর এক সমর্থককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এছাড়াও প্রার্থীসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেলে উপজেলার দেবোত্তর ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সেলিম রেজা খান শ্রীকান্তপুর গ্রামের জমসেদ আলীর ছেলে এবং ওই ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী আনারস প্রতীকের কে এম শাহিনের সমর্থক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার দুপুরে উপজেলার শ্রীকান্তপুর গ্রামের স্বতন্ত্র প্রার্থী কেএম শাহীন কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে রায়পুর গ্রামে গণসংযোগে গেলে নৌকা প্রতীকের কর্মী-সমর্থকরা হামলা চালায়। হামলায় সেলিম রেজা গুরুত্ব আহত হয়। পরে পাবনা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়।

আহতরা হলেন- প্রার্থী কেএম শাহীন, শ্রীকান্তপুর গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল আওয়াল, সাবেক ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, আসাদুল ইসলাম।

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী কেএম শাহীন বলেন, নির্বাচনী প্রচারণায় আমার কর্মী-সমর্থকদের ওপর নৌকার লোকজন হামলা হামলা করে গুলি করেছে। সেলিম হোসেন আহত হয়। আহত অবস্থায় হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

আটঘরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, নির্বাচনী প্রচারণায় সোহেল অসুস্থ অনুভব করায় হাসপাতালে নিলে স্ট্রোক করে মারা যায় বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। এ ঘটনায় স্বতন্ত্র প্রার্থী তার সমর্থক বলে দাবি করছে। তারা বলছেন, তাকে নৌকার লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

error: কাজ হবি নানে ভাই। কপি-টপি বন্ধ