পাপিয়া ও তার স্বামী ১৫ দিনের রিমান্ডে

সুন্দরি তরুণীদের দিয়ে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, অবৈধ অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, জাল নোট সরবরাহ, অর্থ পাচারসহ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার সদ্য বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান সুমনকে ১৫ দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১১ মার্চ) ঢাকা মহানগর হাকিম পৃথক তিন মামলায় তাদের রিমান্ডে দেয়ার এ আদেশ দেন।

বুধবার পাপিয়াকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় বিমানবন্দর থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা, শেরেবাংলানগর থানার অস্ত্র ও মাদক মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ১০ দিন করে ৩০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়।

 শুনা‌নি শে‌ষে বিমান বন্দর থানার মামলায় জন্য ঢাকার মে‌ট্রোপ‌লিটন ম‌্যা‌জি‌স্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস ৫ দি‌নের এবং শে‌রে বাংলানগর থানার দুই মামলার জন্য ঢাকার মে‌ট্রোপ‌লিটন ম‌্যা‌জি‌স্ট্রেট সারাফুজ্জামান আনছারী  ১০ দি‌নের রিমান্ড মঞ্জুর ক‌রেন।

এর আগে এই তিন‌টি মামলায় গত ২৪ ফেব্রুয়া‌রি ১৫ দি‌নের রিমা‌ন্ডে পাঠিয়েছিলেন আদালত। সেই রিমান্ড শে‌ষে বুধবার (১১ মার্চ) তা‌দের আদাল‌তে হা‌জির ক‌রে ফের ৩০ দি‌নের রিমান্ড আবেদন করা হয়।

আগের দিন পা‌পিয়ার প‌ক্ষে ক‌য়েকজন আইনজীবী থাক‌লেও এদিন রিমান্ড শুনা‌নি‌তে রাষ্ট্র বা আসা‌মিপ‌ক্ষে কো‌নো আইনজীবী ছি‌লেন না।

উল্লেখ্য, দেশত্যাগের সময় গত শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে বিমানবন্দর থেকে তিন সহযোগীসহ নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের এই সাধারণ সম্পাদক ও তাঁর স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১। পরে তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী রাজধানীর গুলশানের পাঁচ তারকা হোটেল ওয়েস্টিন থেকে চার নারীকে আটক করা হয়। মোটা অঙ্কের টাকায় তাদের দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অসামাজিক কাজ করিয়ে আসছিলেন পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন।

রাজধানীর গুলশানের অভিজাত হোটেল ওয়েস্টিনে প্রেসিডেন্ট স্যুট নিজের নামে সবসময় বুকড করে নানা ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছিলেন শামিমা নূর পাপিয়া। যিনি হোটেলটির বারে বিলবাবদ প্রতিদিন পরিশোধ করতেন প্রায় আড়াই লাখ টাকা।

হোটেল ওয়েস্টিনের ২১ তলার প্রেসিডেন্ট কক্ষটি ভাড়া নিতেন পাপিয়া। গত তিন মাসে ওই কক্ষের ভাড়া পরিশোধ করেছেন প্রায় ৮৮ লাখ টাকা। ১৯ তলায় একটি বার রয়েছে, যেটি তিনি পুরোটাই বুক করে নিতেন। সেখানে প্রতিদিন তিনি আড়াই লাখ টাকা মদের বিল পরিশোধ করতেন। সব মিলিয়ে দেখা যায় ৩ মাসে হোটেল বিল প্রায় ৩ কোটি টাকা।

তাকে নিয়ে রবিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা ও নরসিংদীর বাসায় অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। ফার্মগেট এলাকায় ২৮ নম্বর ইন্দিরা রোডে রওশন’স ডমিরো রিলিভো নামক বিলাসবহুল ভবনে  তাদের দুটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি পিস্তলের ম্যাগজিন, ২০ রাউন্ড পিস্তলের গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ ও নগদ ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, ৫টি পাসপোর্ট, ৩টি চেক, বিদেশি মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি ভিসা ও এটিএম কার্ড জব্দ করে র‌্যাব সদস্যরা।

এছাড়াও প্রাথমিক তদন্তে ফার্মগেটে পাপিয়ার ২টি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট, নরসিংদী শহরে ২টি ফ্ল্যাট, ২ কোটি টাকা মূল্যের দুটি প্লট, চারটি বিলাসবহুল গাড়ি এবং গাড়ি ব্যবসায় প্রায় দেড় কোটি টাকা বিনিয়োগের তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া, বিভিন্ন দেশের ব্যাংকে নামে-বেনামে অনেক অ্যাকাউন্টে বিপুল পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত থাকার তথ্য পেয়েছে র‌্যাব।