পাবনায় ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে টাকা আত্মসাতের চেষ্টা, অতঃপর…

পাবনার ঈশ্বরদীতে দিনে দুপুরে টাকা ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে তিন লাখ টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগে রাজু আহম্মেদ (৩০) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) রাতে ঈশ্বরদী শহরে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার যুবক ঈশ্বরদী শহরের আমব্রেলা শোরুমের ম্যানেজার ও উপজেলার শেরশাহ রোডের কাঠালতলা এলাকার ভাড়াটিয়া।

মলম পাটির খপ্পরে পরে তিন লাখ টাকা ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে সোমবার (১৩ জুন) ওই যুবক ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন।

বিষয়টি নিয়ে শহরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তাৎক্ষণিক ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকারসহ পুলিশের একটি টিম হাসপাতালে ছুটে যান। এরপর ওই যুবকের দেওয়া তথ্য সন্দেহজনক মনে হওয়ায় ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আটক ওই যুবক যে বাসায় ভাড়া থাকত সেখানে আদুরী নামে একজন কাজের মহিলা ছিল। তিনি বিভিন্ন বাসায় কাজ করে যে টাকা আয় করতেন তার একটি অংশ রাজুকে দিয়ে ব্যাংকে রাখতেন। গত মাসের ১৯ তারিখ রাজু ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে আদুরীর সম্মতিতে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করে এবং আদুরী আরও ২০ হাজার টাকা রাজুকে দেয় এবং বলে তিন লাখ টাকা আদুরীর নামে ন্যাশনাল ব্যাংকে এফডিআর করতে। অথচ ব্যাংকে টাকা জমা না করে রাজু আদুরীকে জানায় টাকাগুলো এফডিআর করা হয়েছে।

এরপর গত সপ্তাহে আদুরী বেগম রাজুকে তার এফডিআরের তিন লাখ টাকা তুলে দিতে বলে একটি চেক দেয়। রাজু সেই চেক দিয়ে ১৩ জুন আদুরীর অ্যাকাউন্ট থেকে ৫ হাজার টাকা উত্তোলন করে।

এরপর বেলা ১১টার দিকে ব্যাংক থেকে তিন লাখ টাকা তুলে সাদা ব্যাগে নিয়ে শেরশাহ রোড আদুরীর বাসায় হেটে যাওয়ার পথে পেছন থেকে একজন মাথার পেছনে মলম জাতীয় কিছু দিয়ে অচেতন করে তার কাছ থেকে তিন লাখ টাকা নিয়ে যায় বলে প্রচার করে এবং ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়।

ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঈশ্বরদী থানার ওসি তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তার আচরণ ও কথা সন্দেহজনক মনে হওয়ায় পুলিশ ন্যাশনাল ব্যাংকে খোঁজ নিয়ে দেখে রাজু (১৩ জুন) সোমবার তিন লাখ টাকা উত্তোলন করেনি। এমন কি আদুরীর নামে যে তিন লাখ টাকার এফডিআর করার কথা ছিল সেটাও করেনি। সে আদুরীর নামে সোনালী ব্যাংকে দুই লাখ টাকার এফডিআর করার জন্য নিয়ে ১ লাখ টাকার এফডিআর করেছে। এভাবে সে আদুরী বেগমের ৪ লাখ ৬৫ হাজার টাকা আত্মসাত করে পরিকল্পিতভাবে ছিনতাইয়ের ঘটনা বলে প্রচার করার চেষ্টা করেছিল।

ঈশ্বরদী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকার জানান, এমন ঘটনা হওয়ার পরে তদন্তে ছিনতাইয়ের নাটক সাজানোর বিষয়টি ধরা পড়ে। এরপর ভুক্তভোগী আদুরী বেগম ঈশ্বরদী থানায় বাদী হয়ে এজাহার দায়ের করেন। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তার কাছ থেকে তিন লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে এবং বাকি টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে। বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হবে।