উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা মুসলমানের হৃদয়ে আগুন দিয়েছে: শফিকুল ইসলাম মাসুদ

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ বলেছেন, ভারত স্বাধীন হয়েছিল মুসলমানদের রক্তের বিনিময়ে। ৯২ হাজার শহীদের মধ্যে ৬৫ হাজার মুসলমান জীবন দিয়ে ভারতকে স্বাধীন করেছিলেন। অথচ আজ দিল্লিতে সেই মুসলমানদের ওপর নির্যাতন চলছে, পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হচ্ছে। সেখানে কোনো নিরাপত্তা নেই। আগুন দিয়ে মসজিদ ও ঘরবাড়ি পোড়ানো হচ্ছে। এই স্বাধীনতার শহীদদের রক্তের সাথে বেঈমানি করলে, মুসলমানদের রক্ত নিয়ে হোলি খেললে ভারত ভেঙে খান খান হয়ে যাবে। সাম্প্রতিক সময়ে চীনকে দেখে ভারত সরকারের শিক্ষা গ্রহণ করা উচিৎ। বিশ্বায়নের এই যুগে পৃথিবীতে এককভাবে টিকে থাকা সম্ভব নয়। অনতিবিলম্বে ভারতকে এই নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় ১৫০ কোটি মুসলমান সারাবিশ্ব থেকে ভারতকে বিচ্ছিন্ন করে দিবে।

রবিবার (১ মার্চ) সকালে রাজধানী ঢাকার মতিঝিল এলাকায় ভারতের দিল্লিতে মুসলমান হত্যা ও মসজিদে আগুন দেয়ার ঘটনার প্রতিবাদে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ আয়োজিত এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বর থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ইত্তেফাক মোড়ে এক সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিন, ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সহকারী সেক্রেটারি যথাক্রমে দেলওয়ার হোসাইন ও আবদুল জব্বার, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক মোকাররম হোসাইন খান, শ্রমিক নেতা আব্দুস সালাম, যুবনেতা কামাল হোসাইন, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিশে শুরা সদস্য ও বিভিন্ন থানার আমীরসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ বলেন, ভারতে মুসলমানদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। মা বোনদেরকে নির্যাতন করা হচ্ছে। মুসলিম হিসেবে আমরা তা মেনে নিতে পারি না। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ভারতের দিল্লিতে উগ্রপন্থী হিন্দুরা শুধুমাত্র মসজিদেই আগুন দেয়নি, এই আগুন দেয়ার মাধ্যমে তারা সারাবিশ্বের দেড়শ কোটি মুসলমানের হৃদয়ে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে। আজকের চীন মুসলমানদের উপর নির্যাতন ও অন্যায় আচরণ করার কারণে গোটা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। চীন থেকে শিক্ষা নিয়ে ভারত যদি তাদের এই অন্যায় আচরণ বন্ধ না করে, মুসলিম নির্যাতন ও হত্যা বন্ধ না করে, তাহলে অচিরেই ভারতও গোটা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। ভারতের শান্তিপ্রিয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে। আমরা প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে শান্তিতে বসবাস করতে চাই। সেইসাথে একথাও বলে দিতে চাই অবিলম্বে জুলুম-নির্যাতন ও হত্যা বন্ধ না করলে এবং আগামী দিনে মুসলমানের উপর জুলুম ও আগ্রাসন চালালে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এদেশের ২০ কোটি মানুষকে সাথে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে তার মোকাবেলা করবে।

তিনি মুসলিম উম্মাহসহ জাতিসঙ্ঘ ও অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থাগুলোকে এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে ভারতে মুসলমানদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। ভারতে বর্তমান পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলে এর পরিণাম কারো জন্যই সুখকর হবে না। বিজ্ঞপ্তি