ঈশ্বরদীতে মার্কেট বন্ধ করতে বলায় পুলিশের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের ধস্তাধস্তি, আটক ব্যক্তিকে ছিনতাই

পাবনার ঈশ্বরদীতে দোকান বন্ধ করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের মারামারি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। আজ সোমবার বেলা ১১ টার দিকে উপজেলার সাহাপুর নতুন হাট মোড়ে হাসেম সুপার মার্কেট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীরা জানান, হাসেম সুপার মার্কেটের কসমেটিকস, জুতা-স্যান্ডেলসহ বিভিন্ন সামগ্রীর দোকান খোলা দেখে ঈশ্বরদী থানার এএসআই খায়রুল ইসলাম, কনস্টেবল ফুয়াদ ও রুহুল আমিন ওই মার্কেটের দোকান খোলা রাখার ব্যাপারে জানতে চায় দোকানদারদের নিকট। এমন কথা শুনে শান্ত নামের এক দোকানদার পুলিশকে উদ্দেশ্য করে গালাগালি দিলে পুলিশের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় আরো ব্যবসায়ীরা জড়ো হয়ে জটলা পাকাতে শুরু করে।

পরে পুলিশ শান্তকে আটক করে গাড়িতে উঠানোর চেষ্টা করলে শান্ত চিৎকার করলে অন্যান্য ব্যবসায়ীরা জোটবদ্ধ হয়ে পুলিশের নিকট থেকে ধস্তাধস্তির ও হাতাহাতির মাধ্যমে শান্তকে ছিনিয়ে নেয়।

এ সময় ব্যবসায়ীরা পুলিশকে ধাওয়া দিলে তারা দৌঁড়ে গাড়িতে উঠে আশ্রয় নিলে তারা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে বলেও জানান স্থানীয়রা।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির ঈশ্বরদী থানার অফিসারদের নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনাস্থলে যাওয়া এএসআই খায়রুল ইসলাম বলেন, আমরা ভালভাবে দোকান বন্ধ করতে বলেছি। কিন্তু শান্ত নামের এক দোকানী আমাদের গালাগালি করেন। তাকে পুলিশের গাড়িতে তোলার কথা বলায় অন্য ব্যবসায়ীরা আমাদের উপরে চড়াও হন।

এ বিষয়ে ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে সবার সাথে কথা বলে পরিবেশ ও পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। তবে বিষয়টি যেহেতু পুলিশ নিজের ব্যাক্তিগত কাজে সেখানে যায়নি। সরকারী কাজ করতে গিয়ে এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে। তদন্ত সাপেক্ষে সরকারী কাজে বাধা প্রদানের বিষয়টি বিবেচনা করে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মামলা করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।