স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসভা ইমরানের, ঈদের পর কঠোর আন্দোলনের ডাক

ক্ষমতা হারানোর পর ইসলামাবাদে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসভায় ভাষণ দিয়েছেন পাকিস্তানের সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। জনসভায় তিনি ঈদের পর কঠোর আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। দেশের স্বার্থে সবাইকে আন্দোলনে যোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ দলের প্রধান।

রবিবারের জনসভায় ইমরান খান অভিযোগ করেন, তার বাবা মা মুসলিম হওয়ার জন্য ভারতে নিপীড়ন হতে বাঁচতে পাকিস্তানে আসেন এবং পাকিস্তানের জন্যই আজীবন লড়াই করেছেন। ইমরান খান এটিও উল্লেখ করেন যে, তিনি নিজে পাকিস্তানের জন্য অনেক ম্যাচ খেলেছেন। খেলার মাঠে ভারতকে দাঁত-ভাঙ্গা জবাব ও দিয়েছেন।

ইমরান খান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যখন ভারত কিংবা বাংলাদেশকে বলে তোমরা রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক রাখবে না, তখন ভারত যুক্তরাষ্ট্রকে পরোয়া করেনি। কিন্তু পাকিস্তানীরা তাকে প্রশ্ন করে তিনি কেন রাশিয়া গেলেন।

তিনি অভিযোগ করেন, তার ঘরে বিশেষ কোন সম্বল নেই, তিনি সাধারণ জীবনযাপন করেন, কিন্তু অঢেল রুপি আর আরব আমিরাতে বাড়ি করে থাকা এলিট ক্লাস এবং যুক্তরাষ্ট্র এর ষড়যন্ত্রে তাকে ক্ষমতা ছাড়তে হয়েছে। ভারত থেকে পাকিস্তানের অনেক কিছু শেখা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

৩০% কম দামে তেল এবং ২০ লাখ টন গম রাশিয়া দিতে চাইলেও ডলারের কাছে পাকিস্তান বিক্রি হয়ে গেছে বলেও অভিযোগ ইমরানের।

পরের বার ক্ষমতায় আসার আশাবাদ জানিয়ে ইমরান খান জানান, রমজানের পরে কঠোর আন্দোলন হবে এবং সর্বাত্নকভাবে তাতে সবাইকে অংশ নেবার শপথ জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ইমরান অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ ও পাকিস্তান পিপলস্‌ পার্টির (পিপিপি) নেতা আসিফ আলি জারদারি তাকে ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্য ‘বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীদেরথ সঙ্গে হাত মিলিয়েছিলেন।

‘হুমকির চিঠিরথ উদ্ধৃতি দিয়ে সদ্য সাবেক এই পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো প্রধানমন্ত্রী ভবিষ্যতে বিদেশি ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে পারবেন না, যদি কোনো তদন্ত না করা হয়। এ জন্য রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিষয়টিতে সুষ্ঠু তদন্তের আহ্বান জানান তিনি।