আ.লীগ-যুবলীগের নেতার সহযোগিতায় দুই গ্রামের মানুষের রাস্তা বন্ধ করল প্রভাবশালী

স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতাদের সহযোগিতায় ট্রিনের বেড়া দিয়ে পাবনার আটঘরিয়া উপজেলায় দুই গ্রামের মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে এক প্রভাবশালী ব্যক্তি। এতে এই রাস্তা দিয়ে দুই গ্রামের শাতাধিক পরিবারের সদস্যরা চলাচল করতে পারছেন না। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন তারা।

জানা গেছে, আটঘরিয়া পৌসভার ৭নং ওয়ার্ডের দেবোত্তর মহল্লার হিন্দুপাড়া রাস্তা দিয়ে পাকিস্তান আমল থেকে মানুষের চলাচলের এই রাস্তা হঠাৎ গত সোমবার ট্রিনের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে প্রভাবশালী সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন ওরফে ইতু।

গ্রামবাসীর অভিযোগ, তাদের বাপ-দাদার আমলের পূর্ব থেকে এই রাস্তা দিয়ে দেবোত্তর গ্রামের এবং পার্শবর্তী সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের শতশত মানুষ প্রতিদিন চলাচল করেন। কিন্তু গ্রামবাসীকে না জানিয়ে সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন ওরফে ইতু আটঘরিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আজিজুল গাফ্ফার, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা বলে পরিচিত জাহিদ হোসেন এর সহযোগীতায় তাদের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। এর ফলে চরম দুর্ভেগে পড়েছেন তারা।

দেবোত্তর হিন্দুপল্লীর শ্রী সংকর কুমার, শ্রী গোপন কুমারসহ একাধিক ব্যক্তি বলেন, গত সোমবার সকাল থেকে ট্রিন দিয়ে বেড়া দেওয়া শুরু করেন তারা। কিন্তু তাদেরকে নিষেধ করার পড়েও তারা কোরো কথাই রাখেননি।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে একাধীক গ্রামবাসীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ নেতাকে হাত করে এই প্রভাবশালী মহল রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে পারেনি।

এ বিষয়ে প্রভাবশালী সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন ইতু সাথে যোগাযোগ কারা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বাড়ির কেয়ারটেকার শাজাহান আলী বলেন, আমাদের জায়গায় আমরা ঘিড়ে নিয়েছি। এখানে রাস্তা দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি।

এ বিষয়ে আটঘরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন বলেন, রাস্তা ঘিড়ে দেওয়ার খবর আমার কাছে এসেছে। পৌর সভার প্রকৌশলীকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছিলো। তিনি রিপোর্ট দিলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা : ফুয়ারা খাতুন বলেন, মানুষের চলাচলের রাস্তা মালিকানা হলেও রাস্তা বন্ধ করতে পারবে না কেউ। তিনি বলেন, রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এটি আমি জানলাম। পরিদর্শণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।