আসলেন না নেতারা, পাবনা উপজেলা ও পৌর আ.লীগের কমিটি বিলুপ্ত

আলটিমেটাম দেওয়ার পরও নৌকার পথসভায় আসেননি পাবনা সদর উপজেলা ও পৌর শাখা আওয়ামী লীগের নেতারা। ফলে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশ মতে পাবনা সদর উপজেলা ও পৌর শাখা আওয়ামী লীগের বাতিল ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় পাবনা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্বরে সনি বিশ্বাসের নির্বাচনী পথসভা থেকে তিনি এই ঘোষণা দেন।

এর আগে বিকেলে এসএম কামাল হোসেন নেতাদের উদ্দেশে বলেন, সন্ধ্যার মধ্যে পাবনা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা পার্থীর পথসভায় নেতারা উপস্থিত না হলে পাবনা সদর উপজেলা ও পৌর শাখা আওয়ামী লীগের কমিটি বাতিল ঘোষণা করা হবে।

উপস্থিত নেতাদের বক্তৃতা চলার মাঝেই মাঝখান থেকে দাঁড়িয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে এসএম কামাল হোসেন বলেন, এই পথসভা চলাকালে সন্ধ্যে সাতটার মধ্যে যদি পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যদি না আসেন তাহলে সেই মুহূর্ত থেকেই এইসব কমিটি বাতিল ঘোষণা করা হবে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বিশাল বিশাল মিছিল নিয়ে শহরে প্রবেশ করে নৌকার সমর্থকরা। পরে মিছিলগুলো প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ রোডশহ পাবনা শহরের বিভিন্ন সড়ক ও অলিগলি প্রদক্ষিণ করে।

<span;>শোডাউন শেষে শহরের বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্বরে নির্বাচনী অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেখানে বক্তব্য রাখবেন জেলা যুবলীগের আহবায়ক আলী মুতর্জা সনি বিশ্বাসসহ দলের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য, আগামী ৩০ জানুয়ারি পাবনা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেলা যুবলীগের আহবায়ক আলী মুর্তজা বিশ্বাস সনি। নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে চ্যালেঞ্জ করে স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শরিফ উদ্দিন প্রধান। দলীয় নির্দেশনা উপেক্ষা করে প্রধানের পক্ষে উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

error: কাজ হবি নানে ভাই। কপি-টপি বন্ধ