অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে পাবনায় মানববন্ধন-স্মারকলিপি

ফসলি জমি বাঁচাতে পদ্মা নদীর পাবনা সদর উপজেলার চরতারাপুর পয়েন্টে অপরিকল্পিতভাবে ড্রেজার দিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলনের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি দিয়েছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

বুধবার (২২ জুন) দুপুরে পাবনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ঘণ্টাব্যাপী এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে পাবনা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে একটি স্মারকলিপি তুলে দেয়া হয়।

মানববন্ধনে চরতারাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান খান, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল বিশ্বাস, নিজামউদ্দিন ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জালাল উদ্দিন বিশ্বাসসহ কয়েক শতাধিক মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে বক্তারা, সরকার বালু উত্তোলনকারীদের যেভাকে ইজারা দিয়েছেন, সেখান থেকে উত্তোলন না করে নদীর তীর থেকে উত্তোলন করছে। এতে চরতারাপুর ইউনিয়নের বাহিরচর, ভাদুরিয়াডাঙ্গী, শুকচর, কোলচরী, হোগলাডাঙ্গী এলাকা হুমকির মুখে পড়েছে। ইতোমধ্যেই বেশ কিছু ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে। হুমকিতে পড়েছে আশপাশের আরও ফসলি জমি ও মানুষের ঘরবাড়ি। এভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকলে অচিরেই চরতারাপুর ইউনিয়নের কিছু গ্রাম ও কয়েকশ ফসিল জমি নদীতে বিলীন হয়ে যাবে।

তারা আরও বলেন, বালু উত্তোলনকালীরা এলাকার প্রভাবশালী। তাদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষ মুখ খুলতে সাহস পায় না। এই বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে অসহায় ও ভূমিহীনদের দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরও যেকোনও সময় নদী গর্ভে বিলীন হতে পারে।

পরে চরতারাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন ও পুলিশ সুপার মো. মহিবুল ইসলাম খানকে একটি স্মারকলিপি তুলে দেন।

error: কাজ হবি নানে ভাই। কপি-টপি বন্ধ