• আজ
  • বুধবার,
  • ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
  • |
  • ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ


Text_2

পাবনায় ঘুরে দাঁড়ানোর প্রস্তুতি বিএডিসি বীজ বিপনন দফতরের

প্রকাশ: ১৪ নভে, ২০১৭ | রিপোর্ট করেছেন নিজস্ব সংবাদদাতা

বন্যা পরবর্তী কৃষিতে ঘুরে দাড়ানোর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে বিএডিসি’র পাবনা আঞ্চলিক বীজ বিপনন দফতর। এ জন্য আগামী রবি মৌসুমে কৃষকদের হাতে সহজ উপায়ে বীজ পৌছে দেবার প্রক্রিয়ায় ডিলারদের কাছে বীজ সরবরাহ করছে দফতরটি। ধান গমের বীজ ছাড়াও বন্যা ও অতিবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্থ শাক সবজিসহ ডাল তেলের বীজও বিক্রি করা হচ্ছে সরকারী রেটে। বিনা মূল্যে সরকারী প্রনোদনার বীজ কৃষকদের হাতে আগাম পৌছানোর জন্য কৃষি দফতরকে সরবরাহ করা হচ্ছে ডাল ও তেল জাতীয় ফসলের বীজ।

বৃষ্টি ও বন্যার কারনে ফসলের ক্ষতি হবার কারনে চালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্য ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার নাগালের বাইরে চলে যায়। অস্থিতিশীল এ অবস্থা থেকে বের হয়ে আসার পরিকল্পনা হিসেবে পাবনা আঞ্চলিক বীজ বিপপন দফতর পাবনা ও সিরাজগঞ্জ জেলার আঠারটি উপজেলায় ৩৯২টি ডিলারের মাধ্যমে ধান,গম,শাক-সবজি ও ডাল-তেল জাতীয় গুনগত মানের বীজ কৃষকদের হাতে পৌছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোন কৃষকদের নিকট থেকে সরকারী দামের চেয়ে ডিলাররা যাতে বেশী মূল্য নিতে না পারে সেজন্য বিভিন্ন ভাবে প্রচার চালানো হচ্ছে।

পাবনা বিএডিসির আঞ্চলিক বীজ বিপনন কার্যালয়ের উপ পরিচালক কেএম গোলাম সরওয়ার জানান, বন্যা ও বৃষ্টিতে ফসলহানীর ফলে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের পূর্নবাসন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে চলতি রবি মৌসুমে ধান, গম, পিয়াজ, সাকসবজি, সরিষাসহ বিভিন্ন প্রকার বীজ ডিলারদের মাধ্যমে কৃষক পর্যায়ে পৌছানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। জলবায়ূ পরিবর্তন মোকাবেলায় আগাম আবাদ করতে পারলে কৃষক লাভবান হবে। সরকারী প্রনোদনার মাধ্যমে গম, সরিষা, চিনাবাদাম, খেসারী ও ভুট্টার বীজ অত্র দফতর থেকে কৃষি অধিদফতরে পঠানো হচ্ছে। তাদের মাধ্যমে বিনামূল্যে এ বীজ বিতরন করা হবে।