• আজ
  • শনিবার,
  • ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
  • |
  • ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
Text_2

পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনাময় ক্ষেত্র পাবনা-পাকশী

প্রকাশ: ১৬ আগ, ২০১৬ | রিপোর্ট করেছেন

অাজাদ হৃদয়

দেশ বিখ্যাত নানা স্থাপনা এবং প্রাকৃতিক ও ঐতিহাসিক সৌন্দর্যের পাবনা-পাকশী হয়ে উঠতে পারে দেশের পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনাময়  ক্ষেত্র। এশিয়ার সর্ববৃহৎ মানসিক হাসপাতাল, পাবনার পাকশীতে অবস্থিত জোড়া সেতু দেখতে প্রতিনিয়তয় ভিড় করে শত শত মানুষ। বছরের নানা উৎসবের দিনগুলোতে মানুষের ভিড় থাকে চোখে পরার মত।

নৌ, সড়ক, রেল সহ পাবনার ঈশ্বরদীতে  বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকায় পর্যটকরা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সহজেই অাসতে পারবে পাবনাতে। পাবনাকে পর্যটন শিল্প হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে পাবনার পাকশীতে অবস্থিত জোড়া সেতুকে ঘিরে পার্ক তৈরির পরিকল্পনা এখনো চিঠি চালাচালির মধ্যেয় রয়ে গেছে। এটি বাস্তবায়িত হলে পর্যটকদের খুব সহজেই অাকৃষ্ঠ করা সম্ভব হবে।

পাবনা জেলাতে থাকা দেশ বিখ্যাত কিছু স্থাপনা,

১। বাংলাদেশের একমাত্র পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র (প্রক্রিয়াধীন) রূপপুর নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট পাবনা জেলার পাকশীতে অবস্থিত।
২। এশিয়ার সর্ববৃহৎ রেল সেতু এবং ব্রিটিশ স্থাপত্য শিল্পের শত বছরের অনন্য নিদর্শন হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এই পাকশীতে অাবস্থিত।
৩। বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সড়ক সেতু “লালন শাহ ব্রিজ” (এক অংশ) এই পাকশীতে অবস্থিত।
৪। সাদা কাগজের জন্য বিখ্যাত “নর্থ বেঙ্গল পেপার মিল” (বর্তমানে বন্ধ)এই পাকশীতে অবস্থিত।
৫। বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম রপ্তানি প্রক্রিয়া করণ এলাকা “ঈশ্বরদী ইপিজেড”এই পাকশীতে অবস্থিত।
৬। বাংলাদেশ রেলওয়ের দু’টি বিভাগীয় শহরের মধ্যে একটি এই পাকশী।
অাপনি যদি রেলওয়েতে চাকরী করে থাকেন তবে নিশ্চয় অাপনি পাকশী এসেছেন অথবা অাসবেন, ট্রেনে যাতায়াত করে থাকলে ট্রেনের সামনে অথবা পেছনের বগিতে দেখবেন ” # পাকশী ” লেখা অাছে
(ঢাকা টু রাজশাহী,দিনাজপুর, রংপুর এবং খুলনা রুট)
রেলওয়ে কন্ট্রোল অফিস(যেখান থেকে ঢাকা টু রাজশাহী,দিনাজপুর, রংপুর এবং খুলনা রুটের সকল ট্রেন নিয়ন্ত্রণ করা হয়) পাকশীতে অবস্থিত।
৭। বিখ্যাত বিবিসি বাজার (মুক্তিযুদ্ধের সময় বিবিসি রেডিওতে যুদ্ধের খবর শোনানো হতো এই বাজার থেকে,সেই থেকে নামকরণ, লন্ডন থেকে বিবিসির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা বিবিসি বাজার পরিদর্শন করেছেন)পাকশীতে অবস্থিত।
৮। বিনোদনের জন্য অাছে অত্যাধুনিক পাকশী রিসোর্ট।

এবার পাবনা জেলার শুধু একটি থানার কথা বলি,
৯। বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ রেলওয়ে জংশন ঈশ্বরদী।
১০। মৈত্রী ট্রেন যাত্রা পথে একমাত্র ঈশ্বরদী জংশনে যাত্রা বিরতি করে।
১১। ঈশ্বরদীতে অাছে ডাল গবেষণা কেন্দ্র।
১২। অাছে অাঁখ গবেষণা কেন্দ্র।
লাইফ সায়েন্স অনুষদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এখানে উচ্চতর গবেষণার জন্য অাসে
১৩। ঈশ্বরদীতে অাছে বিমান বন্দর
অর্থাৎ মাত্র ২০ মিনিটে ঢাকার সাথে যোগাযোগ সম্ভব।
১৪। ঈশ্বরদীর বিখ্যাত লিচুর কথা না বললেই নয়..
১৫। ঈশ্বরদী একটি থানা, যেখানে তিনটি রেলওয়ে স্টেশন অাছে।

এবার অাসি জেলা শহরে,

১৬। শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।
১৭। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্য স্বনামধন্য “পাবনা এডওয়ার্ড কলেজ” পাবনাতে অবস্থিত।
১৮। অারো অাছে পাবনা মেডিকেল কলেজ।
১৯। দেশের অাটটি ক্যাডেট কলেজের মধ্যে একটি “পাবনা ক্যাডেট কলেজ” পাবনাতে অবস্থিত।
২০। দেশের চারটি টেক্সটাইল কলেজের মধ্যে একটি “পাবনা টেক্সটাইল কলেজ”
২১। ইতিহাস বিখ্যাত অভিনেত্রী সূচিত্রা সেনের জন্মস্থান এই পাবনা।
২২। স্কয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান জন্ম গ্রহণ করেছেন এই পাবনাতে।
২৩। অাছে বিসিক শিল্প নগরী সহ প্রাণ, মেরিল, ইউনিভার্সাল, স্কয়ার এর একাধিক শিল্প প্রতিষ্ঠান।
২৪। অারো অাছে পাবনা সুগার মিল
২৫। এশিয়ার সর্ববৃহৎ মানসিক হাসপাতাল এই পাবনাতে অবস্থিত।
যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজতর হওয়ায় খুব সহজেই ঘুরে দেখতে পারেন পাবনা জেলার এসকল  স্থাপনা।
দেশের এই প্রাকৃতিক এবং ঐতিহাসিক সৌন্দর্যের জেলা ভ্রমন করে মেটাতে পারেন ভ্রমণ তৃষ্ণা।