• আজ
  • সোমবার,
  • ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং
  • |
  • ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Text_2

পাবনায় বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের ১৩ ছাত্রী আটক

প্রকাশ: ১৪ অক্টো, ২০১৯ | রিপোর্ট করেছেন নিজস্ব প্রতিবেদক

পাবনায় ইসলামী ছাত্রী সংস্থার ১৩ জন সদস্যসহ ১৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এরা পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয় ও সরকারি এডওয়ার্ড কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রী। এছাড়াও মাদরাসা এক অধ্যক্ষকে আটক করা হয়েছে।

এসময় বিপুল পরিমাণ ইসলামী ও সাংগঠনিক বই, সদস্য সংগ্রহের ফরম, কর্মীদের নিকট হতে চাঁদা আদায়ের রশিদ ও আদায়কৃত নগদ অর্থ, লিফলেট, ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন জব্ধ করা হয়।

রবিবার (১৩ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৯টায় পাবনা শহরের মনসুরাবাদ আবাসিক এলাকার ৫ নম্বর রোডের ১১৯ নম্বর বাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়। সোমবার (১৪ অক্টোবর) বিকালে আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন- সাথিঁয়া উপজেলার ধুলাউড়ি কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মো. আনোয়ার হোসেন, সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার গোপালপুর গ্রামের আব্দুল মজিদের মেয়ে রাবেয়া খাতুন (২৫),একই থানার কলাগাছি গ্রামের সাইফুদ্দিনেরস্ত্রী ও আতাউর রহমানের মেয়ে আরিফা খাতুন (২৮), সিরাজগঞ্জের আলোকদিয়া গ্রামের মালেক খানের মেয়ে তানজিলা খাতুন (২০)। বগুড়া জেলার গাবতলী থানার বাইগুনী মধ্যপাড়ার আফসার আলীর মেয়ে লুনা খাতুন(২৮),বগুড়া থানার নাড়লী গ্রামের শামসুজ্জামানের মেয়ে শারমিন ওরফে শামচী (২৬)। পাবনা সদর থানার বলরামপুর গ্রামের আহম্মদ প্রামানিকের মেয়ে লাকী (২৪),সাঁথিয়া থানার চিনাখড়া গৌরি গ্রামের আমিন উদ্দিনের মেয়ে তাসলিমা ওরফে সুমাইয়া (১৮), আটঘরিয়া থানার হাঁপানীয়া গ্রামের বাকী বিল্লাহর মেয়ে শামীমা নাসরিন (২৮), সাঁথিয়া থানার কাশিনাথপুর নতুন পাড়া গ্রামের মৃত সোহরাব মোল্লার মেয়ে নাজমা খাতুন(২৭), চাটমোহর থানার বোয়ালমারী গ্রামের মুসাব আলীর মেয়ে মাহফুজা (২২)। নাটোর জেলার বাগাতীপাড়া থানার দেবনগর গ্রামের মহসিন আলীর মেয়ে ফাতেমা খাতুন (২২),নাটোর জেলার লালপুর থানার জমসেদ আলীর মেয়ে আসমাউল হোসনা (২৫)। ঢাকা জেলার কাফরুল থানার মিরপুর ১৩ এলাকার আলাউদ্দীনের স্ত্রী ও আলী আহম্মেদের মেয়ে রুমা খাতুন (৩০)।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাছিম আহম্মেদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরতলীর মনসুরাবাদ আবাসিক এলাকার ৫নং রোডের ১১৯নং বাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়। তারা পাবনার এডওয়ার্ড কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রী।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সোমবার বিকালে আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

এ ব্যাপারে পাবনা জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা ইকবাল হোসাইন প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রী সংস্থার পর্দানশীল নিরীহ ছাত্রীদের মেস থেকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার ও তাদের জঙ্গি হিসেবে আখ্যায়িত করে প্রেস ব্রিফিং করা এবং মিথ্যা মামলা দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, মনসুরাদের ঐ বাড়ির নীচতলা ভাড়া নিয়ে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয়, পাবনা এডওয়ার্ড কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠনে অধ্যায়নরত ছাত্রীরা মেস করে থাকে এবং তারা পর্দানশীন ও বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রী সংস্থার কর্মী। তারা তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সেখানে একটি সাংগঠনিক বৈঠকে মিলিত হয়েছিল। ইসলামী ছাত্রী সংস্থা এদেশে কোন নিষিদ্ধ সংগঠন নয় যে তারা তাদের সাংগঠনিক বৈঠকাদি করতে পারবে না।

মাওলানা ইকবাল হোসাইন জানান, তাদের কাছে কোরআনের তাফসির, বুখারী-মুসলিমসহ বিভিন্ন সংকলিত হাদিসের বইসহ মুসলমান হিসেবে ইসলামীক বই পুস্তক থাকাটাই স্বাভাবিক। এগুলোকে জিহাদি বই বলে চালানোর অপচেষ্টা নিতান্তই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আর বর্তমান সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন থাকা খুবই মামুলি বিষয়। তাইবলে এগুলোকে প্রশাসনের কোন দায়িত্বশীলব্যাক্তির পক্ষে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা করা আইনানুগ কাজ নয়।